Vote campign 06

​বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার প্রতিবাদে সরব টলিউড

Share Link:

​বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার প্রতিবাদে সরব টলিউড

নিজস্ব প্রতিনিধি :  অমিত শাহের রোড শো। থিকথিক করছে গেরুয়া শিবির। মোদির প্ল্যাকার্ড ভাঙা দিয়ে শুরু হয়েছিল বিজেপির তাণ্ডব। সেখান থেকেই ধীরে ধীরে মহানগরে বাড়তে শুরু তাঁদের দাপট। এতটাই দাপট বেড়ে গেল যে অমিত শাহের উপস্থিতিতেই বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙল বিজেপি কর্মীরা। যার জেরে উত্তপ্ত বাংলার রাজনীতি সহ শিল্পজগত। যে ঘটনায় ক্ষিপ্ত মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সরেজমিনে পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে রাতেই ঘটনাস্থলে যান মুখ্যমন্ত্রী। ছিলেন কলকাতার নগরপাল রাজেশ কুমারও। আর বিদ্যাসাগরের ভাঙা মূর্তি হাতে নিয়ে স্পষ্ট ভাষায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়ে দিলেন, ইতিহাসের কলঙ্কজনক অধ্যায়। গোটা ঘটনার তদন্ত করবে রাজ্য সরকার।
 
মমতার পাশাপাশি স্যোশাল মিডিয়ায় প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। ওই দিন রাতেই নিজের ফেসবুক ও ট্যুইটার পেজের ডিসপ্লে পিকচার বদল করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। বিদ্যাসাগরকে শ্রদ্ধা জানাতে নিজের ছবি সরিয়ে স্যোশাল মিডিয়ার ডিপিতে বিদ্যাসাগরের ছবি দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।
 
কেবল তিনিই নন, বিজেপির এই নিম্ন মানসিকতার পরিচয় পেতেই সরব হয়েছেন বাংলা চলচ্চিত্র জগতের শিল্পীরা। যার নিন্দায় ক্ষোভ উগরে দিয়েছে পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায় থেকে শুরু করে অভিনেতা দেব, টোটা রায়চৌধুরী। ফিল্মমেকার রাজ চক্রবর্তী ট্যুইটারে সরাসরি বিজেপি বাংলায় ঢুকতে না দেওয়ার ট্যুইট করে প্রতিবাদ করেছেন। তিনি লেখেন, “যাদের শ্রী ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের সম্বন্ধে বিন্দুমাত্র জ্ঞান নেই তারাই এই ধরণের নোংরা কাজ করতে পারে। তাদের পশ্চিমবঙ্গে থাকার কোনও অধিকার নেই।”
 


 
 
লোকসভা নির্বাচনের তৃণমূল প্রার্থী মিমি চক্রবর্তী ট্যুইটে লেখেন, “অসম্ভব  দুঃখ, রাগ ও লজ্জা হচ্ছে। ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের মত মানুষকে সম্মান দিতে শেখেনি এরা। এই ধরণের কাজ কখনই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। এরা সংস্কৃতি, চিন্তাভাবনা, ভদ্রতা, শিক্ষা সবই হারাচ্ছে।”
অভিনেতা টোটা রায়চৌধুরী কোনও বিশেষ রাজনৈতিক দলকে কটাক্ষ না করেই লিখেছেন, “এই লজ্জাজনক ঘটনার বিরুদ্ধে বলার মত ভাষা নেই আমার কাছে। ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের মূর্তি যে বা যারাই ভেঙে থাকুক তাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতেই হবে সকলকে। প্রত্যেক রাজনৈতিক দলের কাছে আমার অনুরোধ ঘটনাটির পুঙ্খানুপুঙ্খ তদন্ত করা হোক।”

 

 
 
চলচ্চিত্র পরিচালক তথা অভিনেতা অরিন্দম শীল ট্যুইট করেন, “যারা এই কাজটি করেছে তারা এই দেশের সংস্কৃতির বিরুদ্ধে। তারা এই দেশেরই নয়। লজ্জা হওয়া উচিত ওদের। এটা রাজনীতি নয়, অসভ্যতা।”
 
 
সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের ট্যুইটে শোরগোল পড়েছে নেটদুনিয়ায়। লজ্জাজনক ঘটনার নিন্দা করে সার‍ক্যাস্টিক্যালি লিখেছেন, “বিদ্যাসাগর চিহ্নে ভোট দিন।” এই ট্যুইটের পরিপ্রেক্ষিতে অনেকেই কমেন্ট সেকশনে তাঁর কাছে এই স্টেটাসের অর্থ জানতে চেয়েছেন। কয়েকজনের অনুমান, মমতার ডিপি বদলে ফেলাকে কেন্দ্র করেই বিদ্যাসাগর চিহ্নে ভোট দেওয়ার কথা বলেছেন। আবার কয়েকজনের মতে ঘটনাটির নিন্দা তিনি এইভাবেই করতে চেয়েছেন।

 

Vote campign 05

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Vote2019 camp03

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Board Exam AD2

ভোটের জবাব

বীরভূমের লাভপুরে স্ট্রংরুমের পাহারায় কেন্দ্রীয় বাহিনী

বীরভূমের লাভপুরে স্ট্রংরুমের পাহারায় কেন্দ্রীয় বাহিনী

মাদুরাইয়ে একটি স্ট্রংরুমে কড়া প্রহরা

মাদুরাইয়ে একটি স্ট্রংরুমে কড়া প্রহরা

Voting Poll (Ratio)

Vote campign 07